সিলেট-সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় নৌবাহিনী

সিলেট প্রতিনিধি
সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় অসামরিক প্রশাসনকে সাহায্য করতে কাজ করছে নৌবাহিনীর বোট ও ডুবুরী দল।

সিলেটের প্রত্যন্ত বিভিন্ন বন্যা কবলিত এলাকা থেকে মানুষকে উদ্ধার করে আশ্রয়কেন্দ্রে আনতে নৌবাহিনীর ৬ জন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ১২টি জেমিনি বোট ও ৩৫ জন ডুবুরী সদস্য উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

এছাড়া উদ্ধারকার্য পরিচালনায় ১০০ জন বিভিন্ন পদবীর নৌ সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন।

সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত নৌবাহিনীর এই উদ্ধার কার্যক্রম চলমান থাকবে।

এ বিষয়ে নৌবাহিনী উদ্ধারকারী দলের কন্টিনজেন্ট কামরুল আবেদীন বলেন, সিলেট ও সুনামগঞ্জে তাদের ১০০ জনের টিম উদ্ধার কাজে অংশ নিয়েছে। সুনামগঞ্জে তাদের টিম ২ ভাগে বিভক্ত হয়ে কাজ করছে।

রোববার (১৯ জুন) তারা সুনামগঞ্জ ও দিরাইয়ে ২০ জনকে উদ্ধার করে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে এসেছেন। আগের দিন শনিবার দক্ষিণ সুরমা ও আশপাশ এলাকা থেকে আরও ২১ জনকে উদ্ধার করেছেন। এছাড়া সোমবার ২টি টিম দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে সুনামগঞ্জ সদর ও জামালগঞ্জ এলাকায় উদ্ধার কাজ চালাবে।

টানা ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে সিলেটের কোম্পানিগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, বিশ্বনাথ, কানাইঘাটসহ সিলেট সদরের ৮০ শতাংশ এবং সুনামগঞ্জের ৯০ শতাংশ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। নগরের উপশহর, দক্ষিণ সুরমা, হাউজিং এস্টেট, জিন্দাবাজার, কদমতলী, বাস স্টেশন, রেলওয়ে স্টেশনসহ নগরের ৮০ শতাংশ পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় জীবন নিয়ে শঙ্কিত এসব অঞ্চলের মানুষরাও।

নগরের উপকণ্ঠ কুমারগাঁও এলাকায় বিদ্যুতের ১৩২/৩৩ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রে বন্যার পানি উঠে যাওয়ায় পুরো সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে মোবাইল নেটওয়ার্কও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। বন্যার এমন ভয়াবহতায় প্রতিনিয়ত প্লাবিত হয় নতুন নতুন এলাকা।

বন্যার পানিতে নিমজ্জিত এলাকাগুলো থেকে বন্যা কবলিত মানুষদের উদ্ধার করতে অসামরিক প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে নামে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এরপর নৌবাহিনী ৩৫ জনের একটি ডুবুরিদল, কোস্ট গার্ডের দুটি ক্রুজসহ বিভিন্ন পদবীর ১০০ নৌবাহিনীর সদস্য সিলেটে এসে উদ্ধার কাজে যোগ দেন।

Related Articles

Back to top button